সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ১০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে পাবনার এক স্কুলশিক্ষিকার বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ওই শিক্ষিকার বাড়ি অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন ভুক্তভোগীরা। পরে রাত সাড়ে ৯টার দিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ শিক্ষিকাকে আটক করে।

তিনি হলেনপাবনা পৌর এলাকার পুলিশ লাইনস স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রাথমিক শাখার শিক্ষিকা মোছা. সীমা আক্তার (৪০)। তিনি পৌর এলাকার আটুয়া হাউজ পাড়া মহল্লার মৃত হানিফুল ইসলামের স্ত্রী।

এদিকে মাসিক লাভের টাকা নিতে এসে শিক্ষিকাকে না পেয়ে ভুক্তভোগীরা বুঝতে পারেন, তারা প্রতারণার শিকার হয়েছেন। এ ঘটনার পরে স্কুল কর্তৃপক্ষ ওই শিক্ষিকাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে। পরে ভুক্তভোগীরা পাবনা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করছেন। ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই শিক্ষিকার ব্যবসার বৈধ কোনো কাগজপত্র পাওয়া যায়নি। তিনি মানুষের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

অভিযোগের বিষয়ে মোছা. সীমা আক্তার বলেন, ‘আমার কোনো বৈধ ব্যবসা নেই। একজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে আরেকজনকে দিয়েছি। যারা টাকা দিয়েছে তাদের সুদে অনেক টাকা লাভ দিয়েছি। অমি কারও টাকা আত্মসাৎ করিনি। মানুষ না জেনে না বুঝে আমাকে টাকা কেন দিয়েছে?

সম্প্রতি যারা আমাকে টাকা দিয়েছে তাদের টাকার একটি হিসাব করেছি। সেখানে প্রায় তিন কোটি টাকার মতো হবে। সেসব টাকা আমি দিয়ে দেবো। আর যারা লাভের টাকা নিয়েছে তাদেরটা দেবো না। আর আমাকে কেন স্কুল থেকে বহিষ্কার করেছে সেটি স্কুল কর্তৃপক্ষ জানে। আমি ব্যক্তিগত কাজে বাইরে ছিলাম। জেলা পুলিশ আমাকে আসতে বলেছে বলে আমি এসেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here