স্যালুট কমরেড |

রাত যখন সুগভীর তন্দ্রায় আচ্ছন্ন
শুধু ঝিঁঝিঁপোকার একটানা বিলাপ
শব্দহীন চেতনাহীন আকাশ বাতাস
অরণ্য প্রান্তর মাটির পৃথিবীর সব ঘর,
ঠিক এমন সময় শোনা গেল ঠকঠক
অশ্বক্ষুরের দ্রুতগতির একটানা শব্দ।
দ্বাদশ অশ্বারোহী অন্ধকারে অন্ধকার
হয়ে তারা ছুটেই চলেছে গ্রাম নগর
শহর শহরতলি পেরিয়ে,  অরণ্য কান্তার
হাট বাঁট পেরিয়ে। প্রতিটি ঘর প্রতিটি মুখ
নিবিড় নিরীক্ষণে বিদ্ধ করে ছুটছিল তারা।
আকাশে তখনো আলোর রেখা ফুটেনি
তারাদের চোখ থেকে ঝরছিলো অশ্রুকণা।
গ্রামের প্রত্যন্তে একটি আধভাঙা ঘর থেকে
মৃদু আলোর সাথে ভেসে আসছিল শিশুর কান্না
 সেই বাহিনী সেদিকে ছুটে গিয়ে দেখলো রুদ্ধ দ্বার।
ঠক ঠক শব্দ হলো কেউ খুললো না দরোজা
শিশুর চাপা কান্না জানালো ঘরে যারা জেগেই আছে।
এরপর সজোরে ধাক্কা হুড়মুড়্ ভাঙ্গলো দরোজা।
অশীতিপর বৃদ্ধ ঝাপসা দৃষ্টি হাতে লাঠি প্রতিরোধে,
বৃদ্ধা নারী দৃষ্টিতে আগুন বেপরোয়া দাঁড়িয়ে আছে,
পেছনে যুবতী নারী ক্ষুধার্ত শিশু কোলে জীবন্ত প্রতিবাদ!
যারা এসেছিল বুঝে গেল এই বাড়িই তার বাড়ি,
যার সন্ধানে তারা দিনকে রাত রাতকে দিন করে
বেড়িয়েছে সারাটা মুল্লুক, কিন্তু সে কোথায়?
বারবার হুমকি দিয়েও বাসিন্দাদের মুখ থেকে
একটি শব্দও বের করা গেলো না! অবশেষে তারা
আবার ছুটলো  —
মাঠের পর মাঠ প্রান্তরের পর জনপদ কত পার হলো,
রাত্রি শেষের পুব আকাশ এক অনির্দেশ্য স্মিত আলোকে
মুখ ধুুয়ে যেন সহাস্য মুখে প্রস্তুত হলো রক্তিম আবহে,
বৃক্ষ তরুলতা জেগে উঠল আনন্দ ছড়িয়ে ফুলের পাপড়িতে,
পাখিরা প্রভাতী সঙ্গীতের নহবতে মেলালো মধুর কণ্ঠ!
অরণ্যের ওপারে নদীটির তীরে কার দীর্ঘ তনু শায়িত?
চকিতে দ্বাদশ অশ্বারোহীর শাণিত চব্বিশটি চক্ষু
পরস্পরের বিস্ময়াহত মুখে দৃষ্টি বুলিয়ে
নিয়ে জানতে চাইলো সবাই একই ভাবছে কিনা!
এরপর অসংলগ্ন কিছু বার্তালাপ, কিছু টুকরো কথা …..
কে লোকটি?
এই কি সেই কবি যে কমিউনিস্ট?
এই কি সেই যাকে জ্যান্ত ধরে নিয়ে গেলে বড় ইনাম মিলবে?
এর লাশ নিয়ে গেলে আরো বড় ইনাম?
বারোজনের মধ্যে যে সবচেয়ে ছোটখাটো বোকাসোকা,
সে বললো, আচ্ছা কমিউনিস্ট কি মানুষ নয়?
চোপ বে….চাপাগলায় ধমকে উঠলো
ওদের নেতা। সে থামলো না, ছোট্ট লোকটি…
ওর হাতে রক্তমাখা কাগজ দেখো! আহা!
ওর বুকটাকে এ ফোঁড় ও ফোঁড় করেছে গুলি!
এতো রক্ত! এতো রক্ত! ঠিক মানুষের রক্ত!!!
ঢ্যাঙা লোকটা রক্তমাখা কাগজটা জোরে পড়ছিলো,
আমি আামার দেশ ও সকল মানুষকে ভালোবাসি,
ভালোবাসি স্বাধীনতাকে, সাচ্চা কমিউনিস্ট হতে চাই শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে ……
বেঁটে লোকটি চিৎকার করে উঠলো,
স্যালুট কমরেড!
সবাই সুর মেলালো, স্যালুট!
[ কাজরী,কলকাতা ]