সারাদেশে জাতীয় শোকদিবস পালন

আজ ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস। বাঙালির শোকের দিন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের ভয়াল রাতে বিপথগামী কিছু সেনাসদস্য বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেন। বিপথগামী সেনাসদস্যের হাতে বঙ্গবন্ধুর পরিবারের অধিকাংশ সদস্য নিহত হন।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দেন আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীসহ সাধারণ মানুষ। এ ছাড়া সারা দেশের বিভিন্ন জেলা, উপজেলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি ও ম্যুরালে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান সর্বস্তরের মানুষ।সারাদেশ থেকে দ্য লন্ডন টাইমস প্রতিনিধিদের পাঠানো রিপোর্ট নীচে ক্রমান্বয়ে দেয়া হলো(ইমেইল প্রাপ্তি সিরিয়াল অনুযায়ী রিপোর্ট সাজানো হলো-বিভাগীয় সম্পাদক, দ্য লন্ডন টাইমস)

নারায়ণগঞ্জ ব্যাটালিয়ান (৬২ বিজিবি) এর উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন

মোশতাক আহমেদ শাওন।নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ নারায়ণগঞ্জ ব্যাটালিয়ান (৬২ বিজিবি)। সোমবার (১৫ আগস্ট) নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে জালকুড়িতে অবস্থিত কার্যালয়ে এ সকল কর্মসূচি পালন করা হয়।


দিনটির শুরুতেই কালো ব্যাজ পরিধান করে বিজিবির সদস্যরা। এরপর জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও কোরআন খতমের মধ্য দিয়ে কর্মসূচির সূচনা হয়।

বেলা ১০টায় শোক দিবস উপলক্ষে বিশেষ আলোচনা সভা ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জীবনীর উপর নির্মিত প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়।

আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন নারায়ণগঞ্জ ব্যাটেলিয়ন ৬২ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. খালেকুজ্জামান।

সর্বশেষে বিজিবি সদস্যদের রেশন থেকে বাঁচিয়ে ২০০ জন অসহায় গরিব ও দুস্তদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিলো চাল ৫ কেজি, ডাল ২ কেজি, চিনি ১ কেজি, তেল ১ কেজি ও আলু ১ কেজি।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন উপ অধিনায়ক মেজর এস এম হাবিব ইবনে জাহান, ভারপ্রাপ্ত কোয়ার্টার মাস্টার সহকারী পরিচালক হায়দার আলী, কুতুবপুর ইউনিয়নের সদস্য অনামিকা হক ও ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য মো. জামান মিয়া প্রমূখ।

মানিকগঞ্জে নানা আয়োজনে জাতীয় শোক দিবস পালিত

ছবি।রিপন আনসারী।মানিকগঞ্জ।

ঝিনাইদহে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃঝিনাইদহে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদতবার্ষিকী পালিত হচ্ছে।সোমবার সকালে শহরের বিভিন্ন স্থান বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক সংগঠন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শোক র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালী গুলো শহরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে প্রেরণা একাত্তর চত্বরে গিয়ে শেষ হয়।

পরে প্রেরণা একাত্তর চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। প্রথমে রাষ্ট্রের পক্ষে জেলা প্রশাসন, পরে পুলিশ সুপার, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। একে একে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে পুস্পমাল্য অর্পণ করা হয়। পরে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য খালেদা খানম, জেলা প্রশাসক মনিরা বেগম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টুসহ অন্যান্যরা বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা, বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান।অপরদিকে সোমবার সকালে শহরের এইচএসএস সড়কের আহার রেস্টুরেন্টের সামনে আলোচনা সভার আয়োজন করে সদর থানা যুবলীগ ও জেলা জাতীয় শ্রমিক লীগ। এতে ঝিনাইদহ-২ আসনের সংসদ সদস্য তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জীবন কুমার বিশ্বাস, জেলা জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি আক্কাচ আলী, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রাজু আহম্মেদ, সদর থানা যুবলীগের আহ্বায়ক শাহ মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল রাজাসহ অন্যান্যরা বক্তব্য রাখেন। আলোচনা সভা শেষে দোয়া মাহফিল ও গণভোজের আয়োজন করা হয়।

শোকাবহ বরিশালে জাতীয় শোকদিবস পালিত

বিশেষ প্রতিবেদক ।বরিশাল নগরীর প্রায় একহাজার মসজিদসহ জেলার পাঁচ হাজারের বেশি মসজিদে সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ, সদর আসনের সংসদ সদস্য পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল অবঃ জাহিদ ফারুক, মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মিলাদ ও দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে। তবারক হিসেবে দেয়া হয়েছে ভুনা খেচুরী ও ডিমসহ প্যাকেট খাবার। পৃথকভাবে একই আয়োজন ছিলো বরিশাল ক্লাব, উদয়ন স্কুলসহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও। জাতীয় শোক দিবসের এবারের এই আয়োজন ব্যাপক প্রসংশা পেয়েছে সাধারণ মানুষের কাছে। বরিশাল ক্লাবের সামনে অপেক্ষারত ইজিবাইক ও অটোরিকশা চালকদের  কয়েকজন বলেন, আমরা মসজিদে যাওয়ার সুযোগ পাইনি। আমাদের ডেকে এখানে জড়ো করেছেন নেতারা। লাইন ধরে একজন একজন করে খাবারের প্যাকেট নিচ্ছি।
আর খাবার খেয়ে তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলে রিকশাচালক মতিউর বললেন, খেচুরী আর ডিম। খুব মজা হয়েছে। যাদের জন্য এই আয়োজন আল্লাহ তাদের শান্তিতে রাখুন। তাদের পরিবারের সদস্যদের নেক বান্দা বা খাটি মুসলমান বানিয়ে দিন। গত কয়েকদিন টানা বৃষ্টিতে নগরীর আশেপাশের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে এমননিতেই শোকাবহ পরিবেশ বরিশালে। তারউপর ১৪ আগস্ট রাতে গাছপালা উপড়ে পরে নগরীর ১৩ নং ওয়ার্ডে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বেশকিছু বাড়ি। এমনসময় অনেক পরিবারের মুখেই হাসি ফুটেছে ১৫ আগস্টের শোকদিবস উপলক্ষে পাওয়া খেচুরীর প্যাকেটে।
বাংলাদেশ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদাৎ বার্ষিকীর এই দিনটিকে জাতীয় শোকদিবস ঘোষণা করে বাংলাদেশের আওয়ামী লীগ সরকার। এরপর থেকে প্রতিবছর এ দিনটিকে জাতীয় শোকদিবস হিসেবে তারা পালন করে আসছে। ১৯৫৭ সালের ­­­১৫ আগস্ট  স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরের নিজ বাসায় সেনাবাহিনীর কতিপয় বিপথগামী সেনাসদস্যের হাতে সপরিবারে নিহত হন। সেদিন তিনি ছাড়াও নিহত হন তার স্ত্রী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব। এছাড়াও তাদের পরিবারের সদস্য ও আত্মীয়স্বজনসহ নিহত হন আরো ১৬ জন।
এ দিন নিহত হন মুজিব পরিবারের বড় ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শিশু পুত্র শেখ রাসেল, পুত্রবধু সুলতানা কামাল ও রোজী কামাল। শেখ মুজিবুর রহমানের ভাই শেখ আবু নাসের, ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগনে শেখ ফজলুল হক মণি ও তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বেগম আরজু মণিসহ আরো অনেকে।  বঙ্গবন্ধুর জীবন বাঁচাতে ছুটে আসেন কর্নেল জামিলউদ্দীন, তিনিও তখন নিহত হন। দেশের বাইরে থাকায় বেঁচে যান শেখ হাসিনা ও তার ছোটবোন শেখ রেহানা। প্রতি বছর ১৫ আগস্ট তাই নির্মম এক নৃশংসতাকে স্মরণ করিয়ে দেয়। বাঙালি জাতি গভীর শোক ও শ্রদ্ধায় স্মরণ করে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সকল সদস্যদের,পালিত হয় জাতীয় শোক দিবস।
বরাবরের ধারাবাহিকতায় জাতীয় শোক দিবসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে সোমবার বেলা ১১টা ৫৫ মিনিটে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে কিছুটা সময় নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন প্রধানমন্ত্রী। ওই সময় বঙ্গবন্ধু ও ১৫ আগস্টের শহীদদের সম্মান জানিয়ে রাষ্ট্রীয় সালাম জানায় তিন বাহিনীর একটি চৌকস দল; বিউগলে বেজে ওঠে করুণ সুর। পরে দোয়া পাঠ ও মোনাজাতে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী।
পরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে দলের সভাপতি হিসেবে আরও একবার শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি।
এর আগে এদিন বেলা ১১টা ৪৫ মিনিটে হেলিকপ্টারযোগে সফরসঙ্গীদের নিয়ে টুঙ্গিপাড়া পৌঁছান বঙ্গবন্ধুকন্যা।
তারও আগে রাষ্ট্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সোমবার ভোরে রাজধানীর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন শেখ হাসিনা।
এদিকে বরিশালেও বিবির পুকুর পাড়ে বঙ্গবন্ধু ও শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত এর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু করেন সেরনিয়াবাত পরিবার ও বরিশাল মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। দুপুরে জোহরের নামাজের শেষে  মিলাদ এবং দোয়ার আয়োজন করে তারা। বিকালে দলীয় কার্যালয়ে শোক আলোচনা ও স্মৃতিচারণ এবং দোয়া চলবে রাত দশটা পর্যন্ত।

নোয়াখালীতে শোক দিবস পালিত

নোয়াখালী প্রতিনিধি।নোয়াখালীতে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে।

সোমবার (১৫ আগস্ট) দিবসটি উপলক্ষে জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।দিবসটি উপলক্ষে সোমবার মুজিব চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন, জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান, পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সরকারি দপ্তরের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

এ ছাড়াও জেলার নয়টি উপজেলায় যথাযত মর্যাদায় ভাবে দিবসটি পালন করা হয়।

নিজেদের মধ্যে ঐক্যই হোক শোক দিবসের শপথ– বি এইচ হারুন এমপি


রাজাপুর (ঝালকাঠি) প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলা প্রশাসন আয়োজনে স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২২ উপলক্ষে আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সাংসদ ও গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য বজলুল হক হারুন এমপি।
প্রধান অতিথি তার বক্তাব্যে বলেন, ‘জাতির জনকের শাহাদৎ বার্ষিকীর দিনে মুজিব আদর্শের সৈনিকদের ঐক্যই হোক আমাদের আজকের দিনের শপথ। বঙ্গবন্ধুর উত্তরসুরী জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী রাখতে আমাদের নিজেদের মধ্যে ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই। দেশ ও সাধারন মানুষের স্বার্থে আগামীতে আবারো শেখ হাসিনার কাছেই রাষ্ট্রক্ষমতা দিতে হবে। নিজেদের মধ্যে সকল ধরনের ভেদাভেদ ভুলে জাতির পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে শোককে শক্তিতে রুপান্তর করে বঙ্গবন্ধুর নৌকার যাত্রী হয়ে বাকি জীবন পাড় করবো এটাই হোক জাতীয় শোক দিবসের শপথ।’

তিনি আরো বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের প্রয়াত সদস্যদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় ঘরে ঘরে দোয়া করতে হবে, কারন পিতা মুজিবের জন্ম না হলে আজ স্বাধীন বাংলাদেশে আমরা বাস করতে পারতাম না।’
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রাজাপুর উপজেলা প্রশাসনসহ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর আয়োজনে পৃথক দিনব্যাপী কর্মসূচী পালিত হয়েছে। সকাল থেকেই উপজেলার বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানে আলোচনা সভা, কোরআনখানী, দোয়া মুনাজাতসহ নানা অনুষ্ঠানমালা যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়।
এ ছাড়াও জাতির জনকের ম্যূরালে পুস্পস্তবক অর্পন করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনের কর্মকর্তারসহ সর্বস্তরের হাজার হাজার সাধারন মানুষ।

ওবায়দুল কাদেরের এলাকায় শোক দিবসে আ.লীগের দুই গ্রুপের পৃথক কর্মসূচি পালন


নোয়াখালী প্রতিনিধি।বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নিজ উপজেলা কোম্পানীগঞ্জে বিবাদমান দুই গ্রুপ পৃথক পৃথক নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাত বার্ষিকী এবং জাতীয় শোক দিবস পালন করেছে।

সোমবার (১৫ আগস্ট) দুপুর পৌনে ১টার দিকে বসুরহাট পৌরসভা হলরুম ও বসুরহাট ডাক বাংলোর হলরুমে দুটি গ্রুপ পৃথক এ কর্মসূচির আয়োজন করে। একই সময়ে ও কাছাকাছি স্থানে কর্মসূচির কারনে অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি এড়াতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন ছিল।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের তিন ভাগনের নেতৃত্বাধীন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল সমর্থিত উপজেলা আওয়ামীলীগের একাংশ দিবসটি উপলক্ষে উপজেলা আওয়ামীলীগের ব্যানারে দুপুর পৌনে ১টার দিকে উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে বসুরহাট বাজারে শোক র‌্যালি  বের করে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার বসুরহাট ডাকবাংলোয় গিয়ে আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।  এছাড়াও মধ্যাহৃ ভোজের আয়োজন করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল, উপজেলা আওয়ামীলীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জু, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক নাজিম, সেতুমন্ত্রীর ভাগনে স্বাধীনতা ব্যাংকার্স পরিষদ সদস্য ফখরুল ইসলাম রাহাত, রামপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সিরাজীস সালেকীন রিমন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম শাহীন,উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ ফরহাদ লিংকন প্রমূখ।

অপরদিকে ওই একই ব্যানারে সেতুমন্ত্রীর ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার নেতৃত্বাধীন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের অপর অংশ দিবসটি উপলক্ষে শোক র‌্যালি ও আলোচনার সভা ও মধ্যাহৃ ভোজের আয়োজন করে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন,কাদের মির্জা ঘোষিত উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইস্কান্দার হায়দার চৌধুরী বাবুল,সহ-সভাপতি হাসান ইমাম বাদল, সাধারণ সম্পাদক মো.ইউনুছ,সিরাজপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন মিকন প্রমূখ।

ইটালি-দূতাবাসে শোকদিবস পালিত

ছবি।ইটালি দূতাবাস

নোয়াখালীতে শোক দিবসে স্বেচ্ছায় রক্তদান
নোয়াখালী প্রতিনিধি.জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে নোয়াখালীতে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উদ্যোগে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে।
রোববার (১৪ আগস্ট) সকালে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি নোয়াখালী ইউনিট কার্যালয়ের হল রুমে নিজে রক্ত দিয়ে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি কেন্দ্রীয় কার্যকরি পরিষদের সদস্য ও নোয়াখালী জেলা রেড ক্রিসেন্ট সেসাইটির সেক্রেটারী এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন।
এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীনের পর রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির স্বেচ্ছাসেবী ও ছাত্রলীগ কর্মীসহ ১৫ জন স্বেচ্ছায় রক্তদান করেন।
রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি নোয়াখালী ইউনিটের উপপরিচালক আবদুল করিমের সঞ্চালনায় স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতির বক্তব্য রাখেন রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি নোয়াখালী ইউনিটের সেক্রেটারী এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন।
এ সময় সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জাকিউল ইসলাম দুলাল, বাঁধেরহাট আবদুল মালেক উকিল ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ এনামুল হক, দাদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মতিনসহ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি নোয়াখালী ইউনিটের আজীবন সদস্য, স্বেচ্ছাসেবক, জেলার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের শোক দিবস সভা

ঢাকা, সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২:জাতীয় শোক দিবসে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় আয়োজিত বিশেষ স্মরণ সভা ও চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী সোমবার বিকেলে রাজধানীর কাকরাইলে তথ্য ভবন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সভায় প্রধান অতিথি এবং সচিব মোঃ মকবুল হোসেন বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা দেন। আলোচনা করেন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব খাদিজা বেগম, জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক শাহীন ইসলাম, বিটিভির মহাপরিচালক মো. সোহরাব হোসেন এবং চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদফতরের মহাপরিচালক স. ম. গোলাম কিবরিয়া।

সভায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু এবং তার পরিবারের শহীদ সদস্যদের গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন বক্তারা। মন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের মর্মন্তুদ ঘটনা শুধু হত্যাকান্ড নয়, মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ। এসময় মানুষকে ঠিক চিন্তার পথনির্দেশনা দিতে গণমাধ্যমের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে বলেন, গণমাধ্যমে যেমন স্বাধীনতার প্রয়োজন, তেমনি প্রয়োজন দায়িত্বশীলতা। সচিব মো: মকবুল হোসেন বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন অধিদপ্তর ও সংস্থার সদস্যদের এ সভার শেষে জাতির পিতা ও তার পরিবারের শহীদ সদস্যদের এবং সকল শহীদের আত্মার শান্তি কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়।

তাহিরপুরে বিভিন্ন কর্মসূচিতে আ:লীগের শোক দিবস পালিত 
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি।সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাৎবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে।
সোমবার (১৫ আগস্ট) তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ ও  সহযোগী সংগঠনের আয়োজনে সকালে তাহিরপুর উপজেলা সদরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
এরপর দুপুর ১২টায় তাহিরপুর সদর পুর্ব বাজারে উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে দোয়া মাহফিল ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়।
তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যাপক আলী মুর্তজার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুস সোবহান আখঞ্জী,  সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মোতাহার হোসেন আখঞ্জী শামীম, সুনামগঞ্জ জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি সেলিম আহমেদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর খোকন, এখলাছুর রহমান তারা, উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক রমেন্দ্র নারায়ণ বৈশাখ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য রফিকুল ইসলাম, সেলিম আখঞ্জী, আজিজুল হক, মিজানুর রহমান, সদর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল মিয়া, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি সুষেন বর্মন, সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসেন বিপক, উপজেলা কৃষক লীগ সভাপতি জিল্লুর রহমান, উপজেলা শ্রমিক লীগ আহবায়ক বিল্লাল আমীন, যুগ্ম আহবায়ক মতিউর রহমান মতি, সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি রাজন চন্দ, তাহিরপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আশ্রাউল জামান ইমন, সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান প্রমুখ।