ব্রিটিশ রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের শেষকৃতে অংশ নেওয়ার পর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রের পথে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

লন্ডনের স্থানীয় সময় সোমবার রাত ৮টায় তিনি স্টানস্টেড বিমানবন্দর থেকে বাংলাদেশ বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে নিউ ইয়র্কের উদ্দেশে রওনা হন বলে যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশ হাই কমিশন জানিয়েছে।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে শেখ হাসিনা বক্তৃতা করবেন ২৩ সেপ্টেম্বর, এ বিশ্বসভায় এবারও তিনি বাংলাদেশের মানুষের বক্তব্য তুলে ধরবেন বাংলায়।

ইউক্রেইন-রাশিয়া যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে ‘একতরফা নিষেধাজ্ঞায়’ উন্নয়নশীল দেশগুলোর ক্ষতির কথা জাতিসংঘে তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী এবার সংকট সমাধানে আলোচনার উপর জোর দেবেন বলে ইতোমধ্যে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

২৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নিউ ইয়র্কে অবস্থানকালে বেশ কয়েকটি উচ্চ পর্যায়ের অনুষ্ঠানেও যোগ দেবেন শেখ হাসিনা। বেশ কয়েকজন রাষ্ট্রনেতা এবং জাতিসংঘ মহাসচিব ও জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক হাই কমিশনারের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১০টায় বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে যুক্তরাজ্যের উদ্দেশে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীরা।

লন্ডনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন কমনওয়েলথ মহাসচিব প্যাট্রেসিয়া স্কটল্যান্ড, কনফেডারেশন অব ব্রিটিশ ইন্ডাস্ট্রির (সিবিআই) সভাপতি ও চেলসির লর্ড করণ বিলিমোরিয়া, যুক্তরাজ্যের বিরোধীদলীয় নেতা লেবার পার্টির কিয়ার স্টারমার।

রোববার যুক্তরাজ্যের প্যালেস অব ওয়েস্ট মিনস্টার হলে থাকা রানির কফিনে শেষ শ্রদ্ধা জানান শেখ হাসিনা। পরে প্রধানমন্ত্রীকে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দপ্তরের রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন ল্যাঙ্কাস্টার হাউসে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে তিনি রানির স্মৃতির প্রতি সম্মান জানাতে খোলা শোক বইয়ে স্বাক্ষর করেন।

শোক বইতে বাংলায় শেখ হাসিনা লেখেন, “বাংলাদেশের জনগণ, আমার পরিবার ও আমার ছোট বোন রেহানার পক্ষ থেকে গভীর শোক জ্ঞাপন করছি।”

পরে তাকে সরকার প্রধান হিসেবে আরেকটা কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয় যেখানে রানি সম্পর্কে একটি টেলিভিশনে বক্তব্য দিয়ে শ্রদ্ধা জানান শেখ হাসিনা।

সন্ধ্যায় বাকিংহাম প্রাসাদে রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের সম্মানে ব্রিটিশ রাজা তৃতীয় চার্লসের দেওয়া সংবর্ধনায় যোগ দেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

সোমবার শেখ হাসিনা ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবিতে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় অংশ নিয়ে সন্ধ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের পথে রওনা হন।