লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম!

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:
লক্ষ্মীপুরে জমিজমা বিরোধ আপোষ মীমাংসা করার সময় সালিশ বৈঠকে লিটন হোসেন নামের এক সালিশদারকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। বর্তমানে সে ঢামেকে চিকিৎসাধীন ।
সদর উপজেলার চররুহিতা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের জামাল বেপারী বাড়ির নুরুজ্জামানের ছেলে মোঃ নুরনবী বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় এজাহার দায়ের করেন। এজাহার সূত্রে জানা গেছে, নুর নবীর ভাই ইউনুস হোসেন লিটন দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় বিভিন্ন সালিশ দরবার করে আসছে। সে সুবাদে স্থানীয় মোহাম্মদ আলীর ছেলে মোহাম্মদ রাকিব হোসেন তাদের দীর্ঘদিনের জমিজমা বিষয়ক জটিলতার কথা লিটনের কাছে বলে সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন। লিটন এই নিয়ে একই ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের পূর্ব চররুহিতা গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে ওহিদ, শাকিল, রফিকের ছেলে বাবুল হোসেন ও মালেক হোসেনকে নিয়ে একাধিকবার বৈঠকে বসলেও শাকিলরা বেপরোয়া হওয়ায় মীমাংসা করা যায়নি।
গত ১৬ ফেব্রুয়ারি এই ঘটনাটি নিয়ে পুনরায় স্থানীয় আনা মিয়া মুন্সী বাড়ির সামনে মোহাম্মদ আলীর দোকান সংলগ্ন বসার দিন তারিখ ধার্য হয়। সেখানে পূর্ব থেকে পরিকল্পনা অনুযায়ী বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন নিয়ে এসে অহিদ (২৮),শাকিল (২২),বাবুল (৩০), মালেক (২৬), জহির হোসেন (৩০) ও রফিক লাঠিসোটা দা চেনি চাইনিজ কুড়াল লোহার রড ধামা চাপাতি নিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা করে সালিশদার ইউনুস হোসেন লিটনকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। শুধু তাই নয়, মরিচের গুঁড়া ছিটিয়ে দিয়ে মাটিতে ফেলে বেদম মারধর করা হয়।
স্থানীয় ইউনিয়নের যুবলীগ আহবায়ক গিয়াস উদ্দিন পাটোয়ারী বলেন আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে অসুস্থ লিটনের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।
সদর উপজেলার পশ্চিম যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক মাহবুবুল হক মাহবুব বলেন-‘লিটন সুস্থ হয়ে এলে দুর্বৃত্তদের আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে উপযুক্ত বিচারের ব্যবস্থার করব।
পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।
মোহাম্মদ ইউনুস হোসেন লিটন স্থানীয় ওয়ার্ড এর নির্বাচিত জনপ্রিয় ছাত্রলীগ কর্মী ছিলেন। বর্তমানে ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক।