বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহেনার ৬৭তম শুভ জন্মদিন উপলক্ষ্যে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের পক্ষ থেকে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অভিনন্দন, শুভেচ্ছা ও শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

সোমবার নিজ বাসভবনে ব্রিফিংকালে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর এক কঠিন এবং সংগ্রামী জীবনযাপন করেছিলেন বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনা। সরাসরি রাজনীতিতে না এলেও বড় বোন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সার্বক্ষণিক অনুপ্রেরণা হয়ে আছেন এ নির্মোহ ও জনহিতৈষী ব্যক্তিত্ব।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সাদমাটা জীবনযাপনে অভ্যস্ত শেখ রেহেনা লন্ডনে মেট্রো ও বাসে যাতায়াত করেন। চাকরি ও পরিশ্রম করেই সন্তানদের মানুষ করেছেন তিনি।

‘শেখ রেহেনার সন্তানরা আজ আন্তর্জাতিক মানের ক্যারিয়ার গঠন করেছেন; টিউলিপ সিদ্দিক বর্তমানে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে লেবার পার্টির সদস্য।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, শেখ রেহেনার ত্যাগ, প্রেরণা এবং অন্তহীন সাপোর্টে দেশরত্ন শেখ হাসিনা আজ সফল রাষ্ট্রনায়ক।

তিনি জানান, রত্নাগর্ভা মা শেখ রেহেনার বড় ছেলে রেদোয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি একটি আন্তর্জাতিক সংস্থায় কাজ করেন এবং কনিষ্ঠ কন্যা আজমিকা সিদ্দিক রুপন্তি লন্ডনে ‘গ্লোবাল রিস্ক অ্যানালাইজার’ হিসেবে কাজ করছেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সংকটে, সংগ্রামে বঙ্গমাতা বেগম মুজিব ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সহযোদ্ধা, প্রেরণা ও শক্তির উৎস। ঠিক তেমনি শেখ রেহেনাও পর্দার অন্তরাল থেকে শক্তি ও সাহস জুগিয়ে যাচ্ছেন বড় বোন শেখ হাসিনাকে।

‘বঙ্গমাতা বঙ্গবন্ধুর জীবনে যে ভূমিকা পালন করেছিলেন, শেখ রেহেনাও সে ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন বড় বোন শেখ হাসিনার জীবনে।’

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, প্রচারবিমুখ শেখ রেহেনা কখনও লাইম-লাইটে আসেন না। দেশ, জাতি ও গণতন্ত্রের জন্য নীরবে কাজ করে যাচ্ছেন।

বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যার হৃদয়জুড়ে বাংলাদেশ আর বাংলাদেশের মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর অদম্য স্বপ্ন জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আজ এ শুভক্ষণে আবারও বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহেনার প্রতি অফুরন্ত শুভেচ্ছা ও শ্রদ্ধা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here