মুদি দোকানদার থেকে ৩টি ওভারসিজ প্রতিষ্ঠানের মালিক বনে যাওয়া মধ্যপ্রাচ্যে মানবপাচারকারী চক্রের অন্যতম হোতা টুটুল ও তার সহযোগীসহ আটজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

বুধবার (১৩ অক্টোবর) বেলা ১২টার দিকে রাজধানীর কারওয়ানবাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মোজাম্মেল হক এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, মূলহোতা টুটুল এইচএসসি পাশ করে মেহেরপুরের গাংনী থানার কামন্দী গ্রামের মুদি দোকানদার হিসেবে কাজ করতো।

মোজাম্মেল হক জানান, গত ৫-৭ বছরে সে ভুয়া ওভারসীজ কোম্পানী প্রতিষ্ঠা করে কমপক্ষে অর্ধশত নারী পুরুষকে বিদেশে পাঠিয়েছে। এছাড়াও শতাধিক মানুষের সাথে বিদেশ পাঠানোর নামে প্রতারণা করেছে। সরকারি অনুমোদন ছাড়া গড়ে তোলা হয় ৩টি ওভারসিজ। দালালদের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে সৌদি আরব, জর্ডান ও লেবানে যেতে আগ্রহীদের জোগাড় করা হয়। বিশ্বস্ততা অর্জনে বিদেশ যাওয়া প্রত্যাশীদের পাসপোর্ট করিয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এরপর মেডিকেল করিয়ে বৈধ ওভারসীজের মাধ্যমে তাদের বৈধভাবেই বিদেশ পাঠানো হয়।

তিনি বলেন, চাকরি প্রত্যাশী সংশ্লিষ্ট দেশে যাওয়ার পর পাসপোর্ট জব্দ করে বিক্রি করে দেয়া হয়। মাঝখান দিয়ে হাতিয়ে নেয়া হয় ২-৫ লাখ টাকা। এ অভিযোগে রাজধানীর বাড্ডায় অবৈধ টুটুল ওভারসীজ, লিমন ওভারসীজ ও লয়াল ওভারসীজে অভিযান পরিচালনা করে মূলহোতা সাইফুল ইসলাম ওরফে টুটুলসহ ৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর দিবাগত রাত থেকে বুধবার সকাল আটটা পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা করে তাদেরকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তার অন্যরা হলেন, টুটুলের প্রধান সহযোগী তৈয়ব আলী, শাহ মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন লিমন, মারুফ হাসান, জাহাঙ্গীর আলম, লালটু ইসলাম, আলামিন হোসাইন ও আবদুল্লাহ আল মামুন। এসময় তাদের কাছ থেকে ১০টি পাসপোর্ট, ১৭টি মোবাইল, ৫টি রেজিস্ট্রার, ২টি কম্পিউটারসহ বিভিন্ন কাগজপত্র জব্দ করা হয়।

এ চক্রের বিরুদ্ধে ২০-২৫ জন অভিযোগ করেছে। চক্রটির সাথে বৈধ কোন ওভারসিজ জড়িত সে বিষয়ে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যাদেরই সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here