মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের নিন্দা আটকে দিলো চীন, চিকিৎসকদের প্রতিবাদ

 রয়টার্স, এএফপি । ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১।  মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের নিন্দা জানিয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে দেওয়া একটি বিবৃতি আটকে দিয়েছে চীন। গতকাল মঙ্গলবার (২ ফেব্রুয়ারি) ভিডিও কনফারেন্সে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে চীন সমর্থন না দেওয়ায় যৌথ বিবৃতি দিতে ব্যর্থ হয়েছে নিরাপত্তা পরিষদ।
জানা যায়, বৈঠক শুরু হওয়ার আগে মিয়ানমারে নিযুক্ত জাতিসংঘের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্রেনা সেনা অভ্যুত্থানের কঠোর নিন্দা জানান। তিনি বলেন, এটা স্পষ্ট গত নভেম্বরের নির্বাচনে অং সান সু চির দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) নিরঙ্কুশ জয় পেয়েছে।
সোমবার নবনির্বাচিত সংসদের প্রথম বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেনাবাহিনী অধিবেশন স্থগিত করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানায় । বৈঠক শুরুর প্রাক্কালে তাদের গ্রেফতার করা হয়।
এখন সামরিক প্রধান ও অভ্যুত্থানের নেতা মিন উং লাইং দেশ পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন। সাবেক জেনারেল মিয়ন্ট সুই ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
এদিকে মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলনের ডাক জোরদার হচ্ছে। মঙ্গলবার রাতে ইয়াঙ্গুনে এ পর্যন্ত সবচেয়ে বড় গণপ্রতিবাদে জড়ো হওয়া বিক্ষোভকারীরা অমঙ্গল দূর হবে বলে শ্লোগান দেন। রীতি অনুযায়ী অমঙ্গল দূর করতে হাঁড়ি-পাতিল বাজান।
৩০টি শহরের ৭০ হাসপাতাল ও চিকিৎসা বিভাগের কর্মীরা বুধবার কাজ বন্ধ করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন।
নতুন গঠিত সিভিল ডিসঅবিডিয়েন্স আন্দোলনের বরাতে বার্তা সংস্থা এএফপি ও রয়টার্স এমন খবর দিয়েছে।
তারা এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, করোনা মহামারীর সময় মানুষ যখন দুর্ভোগে আছে, তখন ঝুঁকিপূর্ণ জনগণের কথা না ভেবে নিজেদের স্বার্থকে প্রাধান্য দিচ্ছে সেনাবাহিনী।
মহামারীতে মিয়ানমারে এখন পর্যন্ত তিন হাজার ১০০ জনের মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হওয়া দেশগুলোর মধ্যে মিয়ানমার একটি।
আন্দোলনটি জানায়, অবৈধ সামরিক সরকারের যে কোনো নির্দেশ মানতে আমরা অস্বীকার করছি। কারণ আমাদের দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে নিয়ে তারা ভাবছে না।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পাঁচ চিকিৎসক কাজ বন্ধ করে দেয়ার কথা নিশ্চিত করেছেন।
২৯ বছর বয়সী এক চিকিৎসক বলেন, আমরা চাই সেনাবাহিনী তাদের ব্যারাকে ফিরে যাক। যে কারণে চিকিৎসকেরা হাসপাতালে যাচ্ছি না। এই ধর্মঘট কতদিন চলবে, তার নির্দিষ্ট কোনো সময়সীমা নেই। এটা কেবল পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে।
শিক্ষার্থী ও তরুণরাও সিভিল ডিসঅবিডিয়েন্স আন্দোলনে যোগ দিচ্ছেন।
সোমবার ভোরে নির্বাচিত সরকারকে হাটিয়ে ক্ষমতা দখল করে নেয় মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। দেশটির ক্ষমতাসীন দলের প্রধান অং সান সু চিসহ তাদের অধিকাংশ নেতৃবৃন্দকে আটক করা হয়েছে।