মানিকগঞ্জে শিশু তানভীর হত্যা মামলায় চাচির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

স্টাফ রিপোর্টার,মানিকগঞ্জ থেকে
মানিকগঞ্জ সদরের জয়নগর গ্রামের শিশু তানভীর হত্যা মামলায় চাচি চায়না বেগমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।একই সঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরো ৬ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।
গতকাল দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মীর রুহুল আমীন এই আদেশ প্রধান করেন। রাষ্ট্রপক্ষের কৌশলী পিপি আব্দুস সালাম এই রায়ের তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৬ সালের ৩০ মে সকালে শাশুড়ি সখিনা বেগমকে তার তিন বছরের ছেলে তানভীরকে দেখতে বলে চিকিৎসার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে যান। পরে পূর্বশত্রুতার জেরে শিশুটিকে বাড়ির পাশের কালীগঙ্গা নদীতে চুবিয়ে হত্যা করে মরদেহ ভাসিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন শিশুটির চাচি চায়না বেগম। ওই সময় নদীতে মাছ ধরার জেলেরা তাকে দেখে ফেলায় মরদেহ রেখে চায়না পালিয়ে যায়।
পরে স্থানীয়দের খবরে পুলিশ ওই শিশুকে উদ্ধার করে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। বাড়ি ফিরে শিশুটির মার তার শাশুড়ি সখিনার কাছে জানতে চায়, ছেলে কোথায়?। শাশুড়ি জানায়, তাকে না পেয়ে সে অনেক খোঁজাখুঁজি করেছে।
পরে প্রতিবেশীদের খবরে হাসপাতালে গিয়ে তার ছেলের মৃতদেহ শনাক্ত করেন তিনি। এ ঘটনায় শিশুটির মা কমলা বেগম বাদী হয়ে চায়নাকে আসামি করে মানিকগঞ্জ সদর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।
রাষ্ট্রপক্ষের কৌশলী পিপি আব্দুস সালাম জানান, এ ঘটনায় মানিকগঞ্জের সিংগাইর থেকে চায়নার এক আত্মীয় বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ২০১৭ সালের ২৮ অক্টোবর চায়নাকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। আদালত ১৭ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণের পর রোববার আসামির উপস্থিতিতে চায়নাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়। আসামী পক্ষের আইনজীবী ছিলেন রেজাউল করিম ।