বনের জায়গা বলে বিশাল সবুজ বাগান কেটে ধ্বংস; বক্তব্য চাওয়ায় সাংবাদিককে হুমকি রেঞ্জারের

আজিজ উল্লাহ,বিশেষ প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের টেকনাফ বাহারছড়া চকিদারপাড়া পাহাড়ি এলাকায় ভূমিহীন অসহায় কৃষক শামসুল আলম নামের এক অসহায় কৃষকের প্রায় ৫শতাধিক সুপারি গাছসহ বিভিন্ন ফলদায়ক গাছ কেটে ফেলে বন বিভাগ। তবু অভিযোগ ওঠেছে চাঁদার দাবি করে টাকা না পাওয়ায় চারদিকে বাকি দখলদারদের বাগান অক্ষত রেখে শুধু তাহার বাগান কেটে ফেলেছে শিলখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা শফিউল ইসলাম।
এদিকে অভিযোগের বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে বক্তব্য চাওয়ায় শিলখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা শাফিউল ইসলাম স্থানীয় সাংবাদ কর্মী দৈনিক অগ্রসর পত্রিকার প্রতিনিধি জুবারুল ইসলাম জুয়েলকে মিথ্যা মামলার হুমকি প্রদান করেন।
সূত্রে জানা যায়, গত ১৮ জুন শনিবার দুপুরে শিলখালী রেঞ্জ কর্মকর্তার নেতৃত্বে সঙ্গীয় বনকর্মীদের নিয়ে কোন প্রকার অবগতি না করে প্রায় ৫ শতাধিক সুপারি গাছসহ বিভিন্ন ধরনের ফলদায়ক সবুজ গাছ কেটে ধ্বংস।
এবিষয়ে দক্ষিণ শিলখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা শাফিউল বলেন, “এসব গাছ আমাদের বাগানে রোপন করেছিলেন ১বছর আগেই, তাই আমরা কেটে ফেলেছি, তিনি আরো বলেন আপনি ভিডিও কেন করলেন আপনার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করবো। হুমকির পাশাপাশি চরম উত্তেজিত হয়ে গালমন্দ করে ফোন কেটে দেয় তিনি’।
এর আগে দিনমজুর অসহায় শামসুল আলমের ফলদায়ক প্রায় ৫শতাধিক সুপারি গাছ ও অন্যান্য গাছ কেটে ফেলার বিষয়ে কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের সিনিয়র কর্মকর্তা সারোয়ার আলমের কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি এবিষয়টি গভীরভাবে দেখবেন বলে আশ্বস্ত করেন এবং ভুক্তভোগী বাগানের মালিকের নাম ঠিকানা সংগ্রহ করে দিয়ে তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেন।
শিলখালী রেঞ্জের সহব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি মো.দেলোয়ার হোসেন জানান,সবুজ গাছপলা পরিবেশের চরম উপকার করে এতে করে মানুষের জন্য অনেক উপকার হয়।যদিও সেই গাছ গুলো বনাঞ্চলের আওতায় পড়ে থাকে, তাহলে বিষয়টি বাগান মালিকদের বলে অন্য যায়গায় রোপণ করলে ভাল হতো ।
অন্যদিকে স্থানীয় ৫নং বাহারছড়া ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান-১ সহ ব্যবস্থাপনা কমিটির কোষাধ্যক্ষ
হুমায়ুন কাদের চৌধুরী বলেন ” এসব গাছ থেকে গরীব অসহায় কৃষক অর্থনৈকভাবে একটা সাপোর্টের পাশাপাশি সবজু গাছপালা আমাদের যথেষ্ট উপকারে আসে তবে বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। এমনকি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশের ১ ইঞ্চি জমি যেন পতিত না থাকে তাতে গাছ লাগানোর জন্য নির্দেশ দেন।”