পদ্মা সেতুর জন্য বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানিয়েছেন দুর্নীতির ভিত্তিহীন অভিযোগে অর্থায়ন থেকে সরে যাওয়া বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধি।

শনিবার (২৫ জুন) মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে সুধী সমাবেশে যোগ দেন বাংলাদেশে নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি মিয়াং টেম্বন। এ সময় বাংলাদেশের সঙ্গে তাদের সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার বার্তা দিয়ে বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বাংলাদেশের জনগণকে অভিনন্দন। সময় এসেছে বাংলাদেশ ও বিশ্বব্যাংকের মধ্যকার সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার।

তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতু বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনীতিতে বহুমাত্রিক সুবিধা নিয়ে আসবে। এদেশের দীর্ঘমেয়াদি উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে বিশ্বব্যাংক এই স্বীকৃতি দেয়। পদ্মা সেতু দেশের সমন্বিত প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত ও দারিদ্র্য হ্রাসে অবদান রাখবে।

২০১১ সালে পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়নের জন্য বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), জাইকা ও ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের (আইডিবি) সঙ্গে ঋণচুক্তি সই করে সরকার। কিন্তু নির্মাণকাজের তদারক করতে পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনে বিশ্বব্যাংক। এরপর একে একে সব অর্থায়নকারী প্রতিষ্ঠান প্রতিশ্রুত অর্থায়ন স্থগিত ঘোষণা করে। এরপর ২০১২ সালের ৯ জুলাই মন্ত্রিপরিষদের এক বৈঠকে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।