তিমির বনিক,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:দৈনিক মজুরি ৩০০ টাকা করার দাবিতে সারা দেশে চা-বাগানে চলমান শ্রমিক ধর্মঘট নিরসনে শ্রম অধিদপ্তরের আয়োজনে বাগানমালিক ও শ্রমিকনেতাদের নিয়ে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শেষ হয়েছে সমঝোতা ছাড়াই। বৈঠক শেষ হয় রাত সাড়ে ১১টায়। বৈঠকের পর শ্রমিকনেতারা ঘোষণা দিয়েছেন দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার।

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে ঢাকার শ্রম অধিদপ্তরের কার্যালয়ে চা-বাগানমালিকদের সংগঠন বাংলাদেশীয় চা সংসদ ও চা-শ্রমিকদের সংগঠন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাদের নিয়ে এ সভায় দুই পক্ষের লোকজন উপস্থিত ছিলেন। বিরতি দিয়ে দুই দফা চলে বৈঠক।


বুধবার সকালে সিলেট বিমানবন্দর সড়কের লাক্কাতুরা চা-বাগানে শ্রমিকদের বিক্ষোভ করতে দেখা গেছে
বৈঠকে শ্রম অধিদপ্তরের মহাপরিচালক খালেদ মামুন চৌধুরী, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাতটি ভ্যালির সভাপতি, সংগঠনের নির্বাহী উপদেষ্টা রামভজন কৈরী, সহসভাপতি পংকজ কন্দ, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নিপেন পাল, অর্থ সম্পাদক পরেশ কালিন্দি, মনু ধলাই ভ্যালির সম্পাদক নির্মল দাশ পাইনকা, বাংলাদেশীয় চা সংসদের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিজয় হাজরা প্রতিবেদককে বলেন, ‘আমরা আমাদের দাবিদাওয়া মালিকপক্ষ ও সরকারের কাছে ধারাবাহিক ভাবে তুলে ধরেছি। মালিকপক্ষ দৈনিক মজুরি ১৪০ টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে। আমরা সেটা মানিনি। সারাদেশের চা-শ্রমিকেরা আমাদের দিকে তাকিয়ে রয়েছেন। আমরা যদি মানসম্মত মজুরি না পেলে সমঝোতা করব না। আমাদের আন্দোলন অব্যাহত আছে। আমরা আগামীকাল বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করব।’

হবিগঞ্জে চা-শ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ