ঢাকা, মঙ্গলবার।নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ঢাকা কলেজের ছাত্রদের সংঘর্ষ গতকাল সোমবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে থামলেও আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে আবার শুরু হয়েছে। সেখানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর উপস্থিতি দেখা যাচ্ছে না।

সংঘর্ষের কারণে রাজধানীর ব্যস্ত মিরপুর সড়কে যানচলাচল পুরোপুরি বন্ধ আছে।গতকাল রাতের সংঘর্ষের ঘটনার জের ধরে আজ সকাল সোয়া ১০টার দিকে আবার সংঘর্ষ শুরু হয়। দফায় দফায় সংঘর্ষ চলছে। ঢাকা কলেজের ছাত্রদের একটি অংশ কলেজের ছাদে, আরেকটি অংশ চন্দ্রিমা মার্কেটের সামনে অবস্থান নিয়েছে।

অন্যদিকে, নিউমার্কেট ছাড়াও আশপাশের অন্যান্য মার্কেটের ব্যবসায়ীরা রাফিন প্লাজা, বলাকা সিনেমা হল ও গাউছিয়া মার্কেটের সামনে অবস্থান নিয়েছেন।

ছাদে থাকা ঢাকা কলেজের ছাত্ররা ব্যবসায়ীদের লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ও ককটেল ছুড়ছেন। রাস্তায় থাকা ব্যবসায়ীরাও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন। তবে চন্দ্রিমা মার্কেটের সামনে থাকা ঢাকা কলেজের ছাত্ররা কিছুক্ষণ পরপরই সংঘবদ্ধ হয়ে ব্যবসায়ীদের ধাওয়া দিচ্ছেন। ব্যবসায়ীরাও পাল্টা ধাওয়া দিচ্ছেন।

সাংবাদিকদের পেটাচ্ছেন দোকানকর্মীরা

রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকায় সংঘর্ষের খবর সংগ্রহ করতে আসা বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের পেটাচ্ছেন নিউমার্কেটসহ আশপাশের বিভিন্ন মার্কেটের দোকানের কর্মচারীরা। তাঁদের অভিযোগ, ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষ নিয়ে সত্য তথ্য প্রকাশ করছেন না সাংবাদিকেরা।

সংঘর্ষের কারণে রাজধানীর ব্যস্ত সড়ক মিরপুর রোডে যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ আছে।

সংঘর্ষের খবর সংগ্রহ করতে আসা বিভিন্ন ইলেকট্রনিক গণমাধ্যমের অন্তত তিনজন সাংবাদিক ও ক্যামেরাপারসনকে পেটাতে দেখা গেছে দোকানকর্মীদের। তাঁদের মধ্যে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল সময় টিভি ও এসএ টিভির দুই সাংবাদিক রয়েছেন।

সময় টিভির ওই সাংবাদিককে নিউমার্কেট থেকে নীলক্ষেত মোড়ে এনে পেটাতে শুরু করেন দোকানকর্মীরা। এসএ টিভির ওই ক্যামেরাপারসনের মাথা ফেটে গেছে।দোকানকর্মীদের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ করায় তাঁকে ‘ভুয়া ভুয়া’ বলে তাড়িয়ে দেন দোকানকর্মীরা।

হামলার শিকার অন্যজন একজন ফটোসাংবাদিক। তাঁকে নীলক্ষেত মোড় থেকে ধাওয়া দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের দিকে নিয়ে যান দোকানকর্মীরা।

সাংবাদিকদের ওপর হামলার কারণ জানতে চাইলে নিউমার্কেটের এক ব্যবসায়ী  বলেন, যে সাংবাদিকেরা সত্য কথা লেখেন না, তাঁদের চলে যেতে বলা হচ্ছে। কাউকে মারধর করা হচ্ছে না। বেলা একটায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সংঘর্ষ চলছিল।

মধ্যরাতে নিউমার্কেটে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ

আজ সকাল থেকে শুরু হওয়া সংঘর্ষে দুই পক্ষেরই বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। ঢাকা কলেজের ছাত্রদের একটি অংশ কলেজের ছাদে, আরেকটি অংশ চন্দ্রিমা মার্কেটের সামনে অবস্থান নিয়েছে। অন্যদিকে নিউমার্কেট ছাড়াও আশপাশের অন্যান্য মার্কেটের ব্যবসায়ীরা নিউমার্কেট, রাফিন প্লাজা, বলাকা সিনেমা হল ও গাউছিয়া মার্কেটের সামনে অবস্থান নিয়েছেন।

অবরোধ ভেঙে দিতে পুলিশের টিয়ারশেল নিক্ষেপ

রাজধানীর নিউমার্কেটে ঢাকা কলেজের ছাত্রদের অবরোধ ভেঙে দিতে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) সকালে সংঘর্ষ শুরুর ৫ ঘণ্টা পর দুপুর একটার দিকে ঘটনাস্থলে আসে তারা। পরে দুপুর একটা ২৫ মিনিটের দিকে টিয়ার শেল নিক্ষেপ করতে থাকে পুলিশ।

এসময় পুলিশের জলকামান ঢাকা কলেজের দিকে অগ্রসর হয়। মিরপুর সড়ক থেকে ব্যবসায়ী ও হকারদের সরিয়ে দিচ্ছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, সোমবার রাত ১২টার দিকে কেনাকাটা নিয়ে বাগবিতণ্ডাকে কেন্দ্র করে নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার সকাল আটটা থেকে দফায় দফায় চলতে থাকে সংঘর্ষ। দুই পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় ৫ সাংবাদিকসহ অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছেন। এদিকে ঢাকা কলেজের ছাদ থেকে নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে শিক্ষার্থীদের ইট-পাটকেল ছুঁড়তে দেখা গেছে।