রিপন আনসারি, মানিকগঞ্জ থেকে ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, আমরা লকডাউন নির্ভর হতে চাই না, ভ্যাকসিন নির্ভর হতে চাই। স্বনির্ভর হবে দেশ। দেশে টিকা উৎপাদনের কারখানা হবে গোপালগঞ্জে। শনিবার (২৬ জুন) করোনার সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে মাানিকগঞ্জের স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময়কালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, করোনা মহামারিকে আমরা ভ্যাকসিন প্রয়োগের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করব। নিজ দেশেই উৎপন্ন হবে ভ্যাকসিন। ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করেছি, ভ্যাকসিন চলমান। এসব উন্নয়নের কারণে আমাদের দেশে মৃত্যুহার দেড় শতাংশ। সারা পৃথিবীতে মৃত্যুর হার আড়াই শতাংশ। করোনার কারণে কেউ চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যেতে পারছে না। তারা এই দেশেই চিকিৎসা নিচ্ছেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে জনসন অ্যান্ড জনসনের সাত কোটি ডোজ টিকা পেতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে চিঠি এসেছিল। এ বিষয়ে সরকার সম্মতি দিয়েছে।

এর আগে মন্ত্রী জানান, বিশ্বজুড়ে টিকা সরবরাহের আন্তর্জাতিক প্লাটফর্ম কোভ্যাক্স থেকে পাঠানো যুক্তরাষ্ট্রের মডার্নার তৈরি করোনাভাইরাসের ২৫ লাখ ডোজ টিকা সর্বোচ্চ ১০ দিনের মধ্যে বাংলাদেশে এসে পৌঁছুবে।

বাংলাদেশে তৃতীয় টিকার চালান হিসেবে টিকার আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্ম কোভ্যাক্স থেকে পাওয়া মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজার ও জার্মান জৈবপ্রযুক্তি কোম্পানি বায়োএনটেকের তৈরি ১ লাখ ৬২০ ডোজের চালান এসে পৌঁছায় গত ৩১ মে।

গত ২১ মে এই টিকা পরীক্ষামূলকভাবে ঢাকার তিনটি হাসপাতালে প্রয়োগ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, চীন থেকেও টিকার একটি বড় চালান আসার কথা রয়েছে। চীনের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী এসব টিকা আসবে। তবে কবে নাগাদ এসব টিকা পৌঁছাবে তা নিশ্চিত করেননি তিনি। চীনের সঙ্গে একটা মনোমালিন্য তৈরি হয়েছিল, সেটি কেটে গেছে। আমরা আশা করি অল্প দিনের মধ্যেই কিছু টিকা পাব। পরিমাণ বলতে পারছি না, তবে সংখ্যাটা ভালোই হবে আশা করি।

এরই মধ্যে দেশের করোনার প্রকোপে সোমবার থেকে শাটডাউন ঘোষণা করেছে। করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে খুলনা বিভাগের সীমান্তবর্তী জেলাগুলাতে। লকডাউনেও থামানো যাচ্ছে না আক্রান্তের হার। করোনা হটস্পট রাজশাহীতেও মৃত্যু ও সংক্রমণের হার আগের মতোই। আর রোগীর চাপ সামলাতে দিশেহারা হাসপাতালগুলো। তৈরি হয়েছে শয্যা ও অক্সিজেন সংকট।