ঝিনাইদহে শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজে আইন সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন

রানা আহম্মেদ অভি।
ঝিনাইদহের শৈলকুপায় উচ্চমাধ্যমিক পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মাঝে আইন সচেতনতা বিষয়ক ক্যাম্পেইন করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) আইনী সচেতনতামূলক সংগঠন ল’ অ্যাওয়ারনেস অ্যান্ড এনলাইটেন্ড সোসাইটি। আইন সচেতন ও মানবিক সমাজ গড়ার লক্ষ্য নিয়ে সোমবার ঝিনাইদহের শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ ডিগ্রী কলেজে এ কার্যক্রম পরিচালনা করে সংগঠনটি।

সংগঠন সূত্রে জানা যায়, বেলা সাড়ে ১১টায় কলেজের হলরুমে ক্যাম্পেইন শুরু হয়। কলেজের অধ্যক্ষ আসাদুর রহমান শাহীন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এসময় কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সিনিয়র শিক্ষক মতিউর রহমান উপস্থিত ছিলেন। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান চৌধুরি, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন মিলন, সহ-সভাপতি এস এ এইচ ওয়ালী উল্লাহ, শাহাজাহান আলী ও মুনজুরুল ইসলাম নাহিদ বিভিন্ন বিষয়ে সচেতনতামূলক বক্তব্য রাখেন।

এসময় সংগঠনের দপ্তর সম্পাদক মোসাদ্দেকুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ, সহ-অর্থ সম্পাদক তামান্না ইসলাম, সহ-প্রচার সম্পাদক মেহেদী হাসান আরিফ ও সদস্য দেলোয়ার হোসেন ও রবিউল ইসলাম লাভলুসহ প্রতিষ্ঠানটির দুই শতাধিক শিক্ষার্থী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

বক্তারা মাদক, আত্মহত্যা, নারীর প্রতি সহিংসতা, সাইবার অপরাধ, আইন সচেতন ও মানবিক সমাজ গড়তে কর্তব্য এবং ক্যারিয়ার বিষয়ক সচেতনতামূলক বক্তব্য রাখেন। আলোচনা শেষে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় এবং পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজের অধ্যক্ষ আসাদুর রহমান শাহীন বলেন, ‘ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের থেকে আমরা এরকম উদ্যোগ প্রত্যাশা করি। এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে কলেজের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে নতুন করে জানতে পেরেছে। এটি তাদের বাস্তব জীবনে ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস। কলেজ পরিবারের পক্ষ থেকে সংগঠটির সদস্যদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।’

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘আইন সচেতন ও মানবিক সমাজ গড়ার লক্ষ্য নিয়ে আমাদের সংগঠন বিভিন্ন ধরণের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এর অংশ হিসেবেই এই ক্যাম্পেইন। কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থীরা অসচেতনতার ফলে নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে এবং অনেকে হয়রানির শিকার হচ্ছে। তাদেরকে সচেতন করার লক্ষ্য নিয়েই আমাদের এই কার্যক্রম। কার্যক্রমে সহযোগিতার জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।’