প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের পুনর্গঠিত মন্ত্রিসভার প্রথমবারের মতো বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সময় কোনো মাস্ক ছাড়াই সবাই গাদাগাদি করে মন্ত্রিসভার রুমে বসেন। প্রকাশিত ছবিতে দেখা গেছে কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ কমপক্ষে ৩০ জন ওই বৈঠকে কাঁধের সঙ্গে কাঁধ মিলিয়ে বসেছেন। এ সময় রুমের জানালাও বন্ধ ছিল। শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর)  সংবাদ মাধ্যম গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

শুক্রবারে অনুষ্ঠিত বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের পাশে ছিলেন, চ্যান্সেলর ঋষি সুনাক এবং মন্ত্রিপরিষদ সচিব সাইমন কেস। বিপরীত দিকে বসে ছিলেন সদ্য সাবেক ফরেন সেক্রেটারি ডোমিনিক রাব।

মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের আগে সর্বশেষ বৈঠকেও এমন ছবি দেখা গেছিল। অন্যদিকে সরকারের পক্ষ থেকে মানুষকে জনসমাগম স্থানে মাস্ক পরতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ফলে এ ঘটনার পর মন্ত্রিসভার সমালোচনা করেছেন লেবারপার্টিসহ অন্যান্য বিরোধীরা।

বৈঠকে মুষ্টিমেয় গণমাধ্যমকে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়। পুনর্গঠিত মান্ত্রিসভার এ বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে বেশ হাসি-খুশি দেখা যায়।

এর আগে বুধবার যুক্তরাজ্যের মন্ত্রিসভায় গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি মন্ত্রণালয়ে রদবদল করা হয়। ফরেন সেক্রেটারির পদ থেকে ডমিনিক রাবকে সরিয়ে তার জায়গায় লিজ ট্রাসকে নিয়োগ দিয়েছেন  প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। পাশাপাশি বরখাস্ত করা হয় কয়েকজন মন্ত্রীকে।

আফগানিস্তান থেকে বিশৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে বিদেশি সেনা ও মিত্রদের প্রত্যাহারের পর সংকট সামাল দিতে ব্যর্থ হওয়ায় সমালোচনার মুখে রাবকে তার পদ থেকে সরানো হয়েছে বলে অনেকেই মনে করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here