আফগানদের মানবিক সহায়তা প্রদানে জি-২০ নেতাদের অঙ্গীকার

চরম অর্থনৈতিক সংকট থেকে রক্ষায় আফগানিস্তানের জনগণকে মানবিক সহায়তা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে উন্নত দেশগুলোর জোট জি-২০ এর নেতারা। গতকাল মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল বৈঠকে এ কথা জানান তারা। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে বিবিসি।

আলোচনায় জার্মানির বিদায়ী চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মের্কেল বলেছেন, দেশটিকে চরম বিশৃঙ্খলার মধ্যে পড়তে দেওয়া ঠিক হবে না।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জোর দিয়ে বলেছেন, আফগানিস্তানে যেসব সাহায্য দেয়া হবে, তা দিতে হবে স্বাধীন আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর মাধ্যমে। সরাসরি তালেবানের হাতে নয়।

তবে এখন পর্যন্ত যতটুকু অর্থ সহায়তা পাওয়া গেছে, তা কয়েক মিলিয়ন ডলার হতে পারে, যা জরুরি খাদ্য ও ওষুধের জন্য দেওয়া হচ্ছে।

গত আগস্টে তালেবানদের দখল এবং পরবর্তী সময়ে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের পর আফগানিস্তানে ধুকতে মানবিক পরিস্থিতির মধ্যে এই বিবৃতি এলো জি-২০ এর পক্ষ থেকে।

এদিকে, আফগানিস্তানের জন্য ১ বিলিয়ন (১.১৫ বিলিয়ন) ইউরো অর্থ সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা বা প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটিতে বড় ধরনের মানবিক ও আর্থ-সামাজিক পতন রোধে এ সহায়তা বলে জানিয়েছেন ইইউ প্রধান উরসুলা ভন ডার লেয়েন।

ইতালির আয়োজিত এই সামিটে অংশ নেওয়া অন্য দেশগুলো হলো- যুক্তরাষ্ট্র, ইইউ, চীন, রাশিয়া, তুরস্ক, ভারত এবং সৌদি আরবসহ অন্যান্য দেশ। বৈঠকে প্রায় সব দেশের শীর্ষ নেতা উপস্থিত ছিলেন। তবে রাশিয়া ও চীনের প্রেসিডেন্ট উপস্থিত না হয়ে তাদের প্রতিনিধিদের পাঠিয়েছেন।

এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই অর্থ সরাসরি আফগান জনগণ এবং দেশটিতে কাজ করা বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সহায়তা সংস্থার কাছে চলে যাবে। অর্থাৎ তালেবান সরকারের হাতে সহায়তার অর্থ দেওয়া হবে না। কারণ, তাদের স্বীকৃতি দেয়নি ইইউ।

ইইউ প্রধান উরসুলা ভন ডার লেয়েন বলেন, আফগানিস্তানে বড় ধরনের মানবিক ও আর্থ-সামাজিক পতন এড়াতে আমাদের যথাসাধ্য চেষ্টা করতে হবে। আমাদের দ্রুত সময়ের মধ্যে এটা করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here