আন্তর্জাতিক :‘কোয়ানজা’ হল আফ্রিকার দেশ অ্যাঙ্গোলার বৈধ মুদ্রা। নামটি দেশটির বৃহত্তম নদী কোয়ানজা থেকে নেয়া। অ্যাঙ্গোলার এই নদী বর্তমানে কিছু চীনা মানুষকে নতুন দিগন্ত ও প্রাণশক্তি প্রদান করেছে।
আফ্রিকা পানি সম্পদে ভরপুর তবে কিছু স্থানে পানির অভাবও রয়েছে।  সেখানে নীল নদ ও কঙ্গো নদীর মতো বড় নদী আছে। পাশাপাশি, বিশ্বের বৃহত্তম মরুভূমি সাহারাও রয়েছে। অনেক জায়গায় বছরে শুধু বর্ষাকাল ও শুকনো মৌসুম আছে। কিন্তু বর্ষাকালে বৃষ্টির পানি সংগ্রহ ও সংরক্ষণের স্থাপনা নেই। শুকনো মৌসুমে খরা দেখা দেয়। অ্যাঙ্গোলাও পানি সম্পদে সমৃদ্ধ কিন্তু সেদেশে উদ্ভাবনের হার নিম্ন। তাই সেদেশে ‘পানির অভাব’ রয়েছে অথচ পানি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
দেশটিতে অনেক নদী রয়েছে। কোয়ানজাসহ বড় নদীর সংখ্যা প্রায় ৩০টি। কিন্তু কয়েক দশকের অভ্যন্তরীণ যুদ্ধ স্থানীয় অবকাঠামো গুরুতর ভাবে ধ্বংস করে দিয়েছে। তাছাড়া  অর্থের অভাব, পিছিয়ে পড়া প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন উপাদান পানি সম্পদের উদ্ভাবন ও ব্যবস্থাকে  বিঘ্নিত করেছে। এমনকি স্থানীয় সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নেও  বাধা তৈরি করছে।
গত দশ-বার বছর ধরে দফায় দফায় চীনা প্রতিষ্ঠান “চীনা অভিজ্ঞতা” নিয়ে অ্যাঙ্গোলায় জলবিদ্যু কেন্দ্র, খরা প্রতিরোধ প্রকল্প এবং পানি সরবরাহ ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন প্রকল্প নির্মাণ করে চলছে।
চায়না গেচৌবা গ্রুপ কোং লিমিটেডের নির্মিত অ্যাঙ্গোলার কেকাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোয়ানজা নদীর মধ্য-অববাহিকায় অবস্থিত। এটা হচ্ছে বর্তমানে দেশটিতে চীন বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের নির্মিত বৃহত্তম জলবিদ্যু কেন্দ্র এবং “আফ্রিকার তিন-গিরিখাত প্রকল্প” বলে পরিচিত। প্রকল্পটির নির্মাণকাজ ২০১৭ সালের অগাস্টে শুরু হয় এবং এখন পুরোদমে চলছে।
কেকাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রকল্পের ম্যানেজার ছেন ইয়োংকাং ব্যাখ্যা করে বলেন, জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার পর দেশটির ৪০ শতাংশেরও বেশি বিদ্যুৎ সরবরাহ চাহিদা পূরণ হবে। বছরে প্রায় ৭২ লাখ টন গ্রীনহাউস গ্যাসের নির্গমন হ্রাস করবে। বিদ্যুৎ উৎপাদনের আয় অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণ, প্রাকৃতিক খনি সম্পদের উত্তোলনসহ বিভিন্ন প্রকল্পে ব্যবহার করা হলে সম্পদের প্রাধান্য থেকে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হবে। জলাধার এলাকা গড়ে তোলার পর পিক শেভিং ও বন্যা নিয়ন্ত্রণের ফাংশনও হবে। ফলে ব্যাপকভাবে পানি সম্পদ ব্যবহারের পরিবেশ উন্নত হবে।
এছাড়া, নির্মাণকাজে পিক-আওয়ারে ৬ সহস্রাধিক স্থানীয় কর্মসংস্থান সরবরাহ করে দেশটির জন্য কিছু সংখ্যক পেশাদার জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্মাণ ও ব্যবস্থাপনা মেধাশক্তি প্রশিক্ষণ করবে।
চলতি বছরের এপ্রিলে স্টেকোল কর্পোরেশন নির্মিত কুনেনে প্রদেশের খরা প্রতিরোধ প্রকল্পের প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের প্রকল্প আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পন্ন এবং ব্যবহার করা হয়। প্রকল্পে কুনেনে নদীর ১৫০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য প্রধান চ্যানেল এবং জল খাওয়ার পাম্পিং স্টেশন, আবদ্ধ জলাধার ইত্যাদি স্থাপনা আছে।
কুনেনে প্রদেশ নামিবিয়া মরুভূমির কাছে। বছরের ৯ মাস খরা মৌসুম থাকে সেখানে। স্থানীয় গ্রামবাসী অগাস্টো কোন দিন ২০১৮ সালের বিরল খরার কথা ভুলে যাবেন না। তারপর স্থানীয় জনগণের “ত্রাণ বাহিনী” এসেছে। খরা প্রতিরোধ প্রকল্প কুনেনে নদীর পানিকে উন্মুক্ত চ্যানেলের মাধ্যমে নিম্ন অববাহিকার খরা এলাকায় পরিচালনা করবে। ফলে শুধু বর্ষাকালে চাষ করা আবাদি জমি খরা মৌসুমে সেচ কাজ করা যায়।
স্টেকোল কর্পোরেশনের দক্ষিণ-পশ্চিম আফ্রিকা কোম্পানির জেনারেল ম্যানেজার চাও ইয়োং বলেন, প্রকল্প সম্পন্ন হবার পর মোট ২ লাখ ৩৫ হাজার মানুষ এবং ৪ লাখ গবাদিপশুর পানি ব্যবহার সমস্যা সমাধান করা যাবে। এছাড়া, ৫ হাজার হেক্টর কৃষি জমির জন্য সেচকাজ সরবরাহ করতে পারবে। অ্যাঙ্গোলা সরকার চ্যানেলের বরাবরে বৃহৎ খামার নির্মাণ করে, কৃষি উৎপাদন উন্নয়ন করার পরিকল্পনা করেছে।
বর্তমানে পানির চ্যানেলের দু’পাশে মাঝেমাঝে দেখা যায় অনেক গরু ও ছাগল পানি খাচ্ছে এবং ফসল সতেজ হয়ে উঠছে। খরা মৌসুমে প্রকল্পের সামগ্রিক সুবিধা পুরোপুরিভাবে প্রতিফলিত হচ্ছে।
অ্যাঙ্গোলার পানীয় জল নিরাপত্তা একটি বড় সমস্যা। বিশুদ্ধ পানীয় জলের অভাবে তীব্র ডায়রিয়া ও কলেরাসহ সংক্রামক রোগ দেখা দিচ্ছে।
চলতি বছরের জুন মাসে চায়না রেলওয়ে ২০তম ব্যুরো গ্রুপ কর্পোরেশন লিমিটেড নির্মিত কাবিন্দা পানি সরবরাহ প্রকল্প সম্পন্ন ও চালু হয়। গ্রুপের অ্যাঙ্গোলা আন্তর্জাতিক কোম্পানির সিপিসি’র সম্পাদক ও প্রেসিডেন্ট জু ছিহুই বলেন, প্রকল্পটি কাবিন্দা প্রদেশের বৃহত্তম জীবিকা প্রকল্প। প্রকল্পের স্থাপনা সপ্তাহে ৭ দিন এবং দিনে ২৪ ঘণ্টায় অব্যাহতভাবে কলের পানি সরবরাহ করতে পারে। দৈনন্দিন পানি সরবরাহ দক্ষতা হলো ৫০ হাজার কিউবিক-মিটার এবং প্রদেশটির ৯২ শতাংশ জনসংখ্যা তা থেকে পানি পায়।
অ্যাঙ্গোলার অর্থ ও পরিকল্পনা-মন্ত্রী মারিও কেতানো জোয়াও এক সাক্ষাতকারে বলেছেন, দেশটিতে পানির অভাব নেই। কিন্তু পানি সম্পদ কার্যকরভাবে ব্যবহার করা হয়নি। চীনা প্রতিষ্ঠানের কারণে পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে।
জোয়াও মনে করেন, চীনা প্রতিষ্ঠান প্রযুক্তি ও অভিজ্ঞতা নিয়ে এসে বাস্তব-ভাবে স্থানীয় জীবিকার উন্নয়ন করে টেকসই উন্নয়নে সহায়তা দেয়।
২০০২ সালে আফ্রিকান ইউনিয়ন প্রতিষ্ঠা থেকে চীন সংস্থাটির সঙ্গে হাতে হাত রেখে ২০ বছরের মধ্য দিয়ে চলে আসে। কেকাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র, কুনেনে প্রদেশের খরা প্রতিরোধ প্রকল্প এবং কাবিন্দা পানি সরবরাহ প্রকল্প শুধুমাত্র চীন-আফ্রিকা বন্ধুত্বপূর্ণ সহযোগিতা মানুষের জীবিকার সুবিধার ক্ষুদ্র চিত্র নয় বরং চীন ও আফ্রিকা দু’পক্ষ কয়েক দশক ধরে ভাগাভাগি ও দূর্ভোগে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে প্রচেষ্টা চালানোর বাস্তব চিত্র।
অ্যাঙ্গোলায় নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত গোং থাও বলেছেন, চীন ও অ্যাঙ্গোলা এবং অন্যান্য আফ্রিকান দেশ যদিও ভৌগলিকভাবে অনেক দূরে, কিন্তু আমরা সবসময় হচ্ছি বন্ধু ও ভাই-ভাই। ঠিক মানুষের জানার মতো, পানি থাকলে আশা-ভরসা আছে। প্রত্যাশার ঝর্না অব্যাহতভাবে চীন-আফ্রিকা মৈত্রীর পথে প্রবাহিত হচ্ছে।